Burmese Military Criminal Complaint against Reverend Hkalam Samson

PRESS STATEMENT
MORGAN ORTAGUS, DEPARTMENT SPOKESPERSON
SEPTEMBER 5, 2019

 

The United States continues to support the efforts of the people of Burma to achieve a peaceful, prosperous, and democratic country that respects the human rights and fundamental freedoms of all people, including the freedom of expression.

We are deeply concerned by the lodging of a criminal complaint against Reverend Hkalam Samson in relation to his remarks about religious freedom and the rights of members of ethnic and religious minority groups in Burma during his recent meeting in Washington with the President of the United States.  Freedom of expression, including speaking out in support of human rights is a protected right in the International Covenant on civil and Political Rights and the Universal Declaration of Human Rights and should not be treated as a crime.  Reverend Samson has worked tirelessly to obtain durable solutions for people displaced by the situation in Kachin State.  The Lieutenant Colonel’s criminal complaint against Reverend Samson seeks to unduly limit his freedom of expression and potentially could disrupt his critical work on behalf of tens of thousands of internally displaced people.

The United States is committed to promoting freedom of expression and religious freedom for all and to promoting accountability for violations or abuses of human rights and fundamental freedoms.  A decision to pursue this criminal complaint and arrest Reverend Samson on the basis of his protected speech would be deeply troubling.

==========================

 রেভারেন্ড হাকালাম স্যামসনের বিরুদ্ধে বর্মী সেনাবাহিনীর ফৌজদারি অভিযোগ

 

প্রেস বিবৃতি
মর্গ্যান অর্টাগাস, পররাষ্ট্র দপ্তরের মুখপাত্র
সেপ্টেম্বর ৫, ২০১৯

মত প্রকাশের স্বাধীনতাসহ সব নাগরিকের মানবাধিকার ও মৌলিক স্বাধীনতাকে সম্মান করে এমন একটি শান্তিপূর্ণ, সমৃদ্ধ ও গণতান্ত্রিক দেশ প্রতিষ্ঠার জন্য বার্মার জনগণের প্রচেষ্টার প্রতি যুক্তরাষ্ট্র সমর্থন অব্যাহত রেখেছে।

ওয়াশিংটনে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্টের সঙ্গে সাম্প্রতিক সাক্ষাতের সময় বার্মার জাতিগত ও ধর্মীয় সংখ্যালঘু গোষ্ঠীর মানুষের ধর্মীয় স্বাধীনতা ও অধিকার নিয়ে রেভারেন্ড হাকালাম স্যামসনের মন্তব্যের জন্য তার বিরুদ্ধে ফৌজদারি অভিযোগ দায়ের করায় আমরা গভীরভাবে উদ্বিগ্ন। মানবাধিকারের সমর্থনে কথাবলাসহ মত প্রকাশের স্বাধীনতা হচ্ছে ‘নাগরিক ও রাজনৈতিক অধিকার বিষয়ক আন্তর্জাতিক চুক্তি’ এবং ‘মানবাধিকারের সার্বজনীন ঘোষণা’র মাধ্যমে সুরক্ষিত অধিকার। একে অপরাধ হিসেবে গণ্য করা অনুচিত। কাচিন প্রদেশের পরিস্থিতির কারণে বাস্তুচ্যুত মানুষের সমস্যার একটি টেকসই সমাধান খুঁজতে রেভারেন্ড স্যামসন অক্লান্তভাবে কাজ করেছেন। একজন লেফটেন্যান্ট কর্নেলের ফৌজদারি অভিযোগটি তার মতপ্রকাশের অধিকার অন্যায্যভাবে ক্ষুণ্ণ করছে। এটি অভ্যন্তরীণভাবে বাস্তুচ্যুত লাখো মানুষের জন্য তার গুরুত্বপূর্ণ  কার্যক্রমকে বিঘ্নিত করতে পারে।

যুক্তরাষ্ট্র সবার জন্য মতপ্রকাশের অধিকার ও ধর্মীয় স্বাধীনতা এবং মানবাধিকার ও মৌলিক স্বাধীনতা লংঘন করার জন্য জবাবদিহিতা নিশ্চিতের বিষয়গুলো এগিয়ে নিতে অঙ্গীকারবদ্ধ। আইন ও চুক্তির দ্বারা সুরক্ষিত থাকার পরও বক্তব্য দেওয়ার কারণে রেভারেন্ড স্যামসনের বিরুদ্ধে এই ফৌজদারি অভিযোগের বিষয়টি এগিয়ে নেওয়া এবং তাকে গ্রেপ্তার করার সিদ্ধান্ত খুবই উদ্বেগের সৃষ্টি করবে।

==========================