নন ইমিগ্র্যান্ট ভিসা

আমরা আনন্দের সাথে জানাচ্ছি যে, ১৫ নভেম্বর, ২০২০ রবিবার থেকে ঢাকার মার্কিন দূতাবাস এফ, এম এবং জে ভিসার নতুন আবেদনকারীদের জন্য অ্যাপয়েন্টমেন্ট গ্রহণ করা শুরু করবে। দয়া করে মনে রাখবেন, COVID-19 প্রাদুর্ভাবের কারণে মার্কিন দূতাবাস প্রতিদিন সীমিত সংখ্যক অ্যাপয়েন্টমেন্ট নির্ধারণ করবে এবং ভিসা প্রসেসিংয়ের জন্য ৬ সপ্তাহ পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হতে পারে। আপনার প্রস্তাবিত ভ্রমণের যতটা সম্ভব আগে পারা যায় ভিসা আবেদনপত্র জমা দেওয়ার পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে।

এফ: শিক্ষার্থীবৃন্দ – একাডেমিক এবং ভাষা বিষয়ক

জে: এক্সচেঞ্জ ভিসিটর ভিসা

এম: ভোকেশনাল/ বৃত্তিমূলক শিক্ষার্থীবৃন্দ

আবেদনকারীদের http://cdn.ustraveldocs.com/bd/ এ ওয়েবসাইটে লগ ইন করে তাদের অনলাইনে প্রোফাইল আপডেট করতে হবে এবং ভিসা ফি প্রদানের পরে অনলাইনে তাদের অ্যাপয়েন্টমেন্ট নির্ধারণ করতে হবে।

আমরা আবেদনকারীদের জীবন-মৃত্যু সম্পর্কিত জরুরী অবস্থার প্রয়োজনে দরকারী ভিসা পরিষেবাগুলি প্রদান করা চালিয়ে যাচ্ছি। বিস্তারিত তথ্যের জন্য আমাদের http://cdn.ustraveldocs.com/bd/bd-niv-expeditedappointment.asp ওয়েবসাইটটি দেখুন।

ঢাকার মার্কিন দূতাবাসের নিয়মিত ভিসা পরিষেবাগুলি চালু না হওয়া পর্যন্ত ভিসার আবেদন ফি (এমআরভি) ৩১ ডিসেম্বর, ২০২১ পর্যন্ত বৈধ থাকবে এবং ভিসার অ্যাপয়েন্টমেন্ট নির্ধারণের জন্য ব্যবহার করা যাবে।

ভিসা প্রসেসিংয়ের সর্বশেষ আপডেট জানার জন্য, দয়া করে আমাদের বাংলা (https://bd.usembassy.gov/bn ) এবং ইংলিশ (https://bd.usembassy.gov/ ) ওয়েবসাইট গুলো দেখুন এবং আমাদের ফেসবুক (https://www.facebook.com/bangladesh.usembassy ) এবং টুইটার (https://twitter.com/usembassydhaka ) অ্যাকাউন্ট গুলো ফলো করুন।

 

নন ইমিগ্র্যান্ট ভিসা হচ্ছে অস্থায়ীভাবে যুক্তরাষ্ট্রে যাওয়া আন্তর্জাতিক ভ্রমণকারীদের জন্য। এই ভিসা আপনার পাসপোর্টে সংযুক্ত করা হয়। এটি আপনাকে যুক্তরাষ্ট্রের কোন একটি প্রবেশদ্বারে (পোর্ট অব এন্ট্রি) পৌঁছে হোমল্যান্ড সিকিউরিটি দপ্তরের কাস্টমস অ্যান্ড বর্ডার প্রটেকশন অভিবাসন কর্মকর্তার কাছে সে দেশে প্রবেশ করতে দেওয়ার অনুরোধের সুযোগ করে দেয়। এই ভিসা প্রবেশের নিশ্চয়তা দেয় না। আন্তর্জাতিক ভ্রমণকারীরা বিভিন্ন কারণে যুক্তরাষ্ট্রে আসেন। যেমন পর্যটন, ব্যবসা, চিকিৎসা এবং নির্দিষ্ট কিছু অস্থায়ী কাজ। নন ইমিগ্র্যান্ট ভিসা সম্পর্কে জানতে নন ইমিগ্র্যান্ট ভিসা বিভাগের নির্দেশিকা দেখুন।

আগাম পরিকল্পনা আপনার ভিসা আবেদন প্রক্রিয়া সহজ করতে পারে। সফরের যতটা সম্ভব আগে পারা যায় ভিসার আবেদন করুন।

নন-ইমিগ্র্যান্ট ভিসা সংগ্রহের জন্য এমআরভি ফির মেয়াদ বৃদ্ধি

বাংলাদেশে যুক্তরাষ্ট্র দূতাবাস অবগত আছে যে অনেক ভিসা আবেদনকারী ভিসা আবেদন প্রক্রিয়াকরণ ফি প্রদান করেছেন এবং এখনও ভিসার অ্যাপয়েন্টমেন্ট নির্ধারণের জন্য অপেক্ষা করছেন। আমরা যথাসম্ভব দ্রুত এবং নিরাপদভাবে সকল নিয়মিত ভিসা পরিষেবাগুলি আবার চালু করার জন্য নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছি। এ বিষয়ে আশ্বস্ত করা যাচ্ছে যে, মার্কিন দূতাবাস আপনার ফি প্রদানের বৈধতা (যা এমআরভি ফি হিসেবে পরিচিত) ৩১ ডিসেম্বর, ২০২১ পর্যন্ত বর্ধিত করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে, যাতে কনস্যুলারের নিয়মিত কার্যক্রম স্থগিত হওয়ার কারণে যেসকল আবেদনকারীরা তাদের ভিসা অ্যাপয়েন্টমেন্ট নির্ধারণ করতে পারেননি, তাদের ইতিমধ্যে প্রদেয় ফি দ্বারা ভিসা অ্যাপয়েন্টমেন্ট নির্ধারণ করার এবং/অথবা তাতে অংশ নেওয়ার সুযোগ দেয়ার জন্য। আমরা আবার কখন নিয়মিত ভিসা কার্যক্রম চালু করবো এ সম্পর্কিত তথ্যের জন্য দয়া করে আমাদের সাইটটিতে লক্ষ্য রাখুন।

সঠিক ও বুদ্ধিদীপ্ত উপায়ে আবেদন করুন! ভিডিওটি দেখতে ক্লিক করুন এখানে

যুক্তরাষ্ট্র দূতাবাসের ভিসা প্রক্রিয়া সংক্রান্ত দারুণ একটি অ্যানিমেটেড ভিডিও- ভিসার ভুলভ্রান্তি ও জটিলতা এড়ানোর উপায়!

আমাদের ওয়েবসাইট www.ustraveldocs.com/bd এর মাধ্যমে অথবা কল সেন্টারে যোগাযোগ করে সাক্ষাতের সময়সূচি ঠিক করুন। ভিসা পেতে দূতাবাসে সাক্ষাৎকারের জন্য একটি ব্যবহারকারী অ্যাকাউন্ট তৈরি করুন।

যুক্তরাষ্ট্রে আপনি যতদিন অবস্থান করতে চান তার চেয়ে ছয় মাস বেশি মেয়াদ রয়েছে এমন পাসপোর্ট থাকা। শিশুদের অবশ্যই পৃথকভাবে ইস্যু করা ভিসা থাকতে হবে, এমনকী যদি তা মা-বাবার পাসপোর্টেও সংযুক্ত হয়। ভ্রমণ ভিসা আবেদনকারীদের অবশ্যই এটি দেখাতে হবে যে, তাঁরা যুক্তরাষ্ট্রের অভিবাসন ও জাতীয়তা আইনের ধারা অনুসারে তা পাওয়ার যোগ্য। আবেদনকারীদের অবশ্যই প্রদর্শন করতে হবে যে, যুক্তরাষ্ট্রের আইন অনুসারে তাদের দর্শনার্থী শ্রেণিতে ধরা যেতে পারে।

সংশ্লিষ্ট আইনের আওতায় প্রতিটি ভ্রমণ ভিসা আবেদনকারীকে অভিবাসী হতে ইচ্ছুক ধরা হয়। কাজেই ভ্রমণ ভিসার আবেদনকারীকে অবশ্যই নিজেকে এমনভাবে উপস্থাপন করতে হবে যেন তাঁকে নিয়ে এমন অনুমান না করা হয়। তাকে দেখাতে হবে:

  • তার যুক্তরাষ্ট্র ভ্রমণের উদ্দেশ্য ব্যবসা/দাপ্তরিক কাজকর্ম, বিনোদন অথবা চিকিৎসা;
  • তিনি নির্দিষ্ট, সীমিত সময়ের জন্য যুক্তরাষ্ট্রে থাকার পরিকল্পনা করছেন;
  • যুক্তরাষ্ট্রে অবস্থানকালে নিজের খরচ বহনের যথেষ্ট তহবিল থাকার পক্ষে প্রমাণ;
  • বিদেশে জোরালো সামাজিক ও অর্থনৈতিক সম্পর্ক থাকার পক্ষে প্রমাণ; এবং
  • যুক্তরাষ্ট্রের বাইরে তাঁদের বাড়িঘরসহ আরও সম্পর্কের বিষয় রয়েছে, যা ভ্রমণ শেষে তাঁদের নিজ দেশে ফেরার বিষয়টি নিশ্চিত করবে।

সাক্ষাৎকারে আপনার সঙ্গে রাখুন:

  • বৈধ পাসপোর্ট ও আগে কোনো পাসপোর্ট করা থাকলে তা
  • বারকোডসহ ডিএস-১৬০ নিশ্চিতকরণ পৃষ্ঠা
  • সাক্ষাৎকারের পত্র
  • এইচ, এল এবং অন্যান্য আবেদনভিত্তিক ভিসা আবেদনকারীরা আই-৭৯৭, আই-১২৯ এবং অন্যান্য আবেদনভিত্তিক নথির অনুলিপি সঙ্গে আনতে পারেন
  • এফ, এম শিক্ষার্থীদের অবশ্যই তাদের মূল আই-২০ আনতে হবে
  • জে এক্সচেঞ্জ ভ্রমণকারীদের অবশ্যই তাদের ডিএস-২০১৯ ফরম আনতে হবে

নিরাপত্তাজনিত কারণ ও স্থানের সীমাবদ্ধতার জন্য ঢাকার যুক্তরাষ্ট্রের দূতাবাস বন্ধু, আত্মীয়, আইনজীবী বা ব্যবসায়িক যোগসূত্র রয়েছে এমন ব্যক্তিসহ আগ্রহী কাউকে ভিসা আবেদনকারীর সঙ্গে সাক্ষাতকারে উপস্থিত থাকার অনুমতি দেয় না। আবেদনকারীকে অবশ্যই উপস্থিত কোন ব্যক্তির সহায়তা ছাড়া সাক্ষাৎকার দেওয়ার জন্য প্রস্তুত হয়ে আসতে হবে।

দূতাবাসে আপনার সাক্ষাৎকারের দিন

হাজির হওয়া:

  • সাক্ষাৎকারের দিন আপনার সাক্ষাৎকার পত্রে উল্লেখিত তারিখ ও সময় অনুসারে কনস্যুলার সেকশনে আসুন।
  • কনস্যুলারের অপেক্ষা কক্ষে প্রবেশ করে অভ্যর্থনাকারীদের সঙ্গে যোগাযোগ করুন এবং তাঁদের নির্দেশনা মতো নির্দিষ্ট উইন্ডোতে গিয়ে আবেদনপত্র ও আঙুলের ছাপ দিন।
  • আঙুলের ছাপ নেওয়ার উইন্ডোতে আপনার বর্তমান পাসপোর্ট, মূল ডিএস-১৬০ নিশ্চিতকরণ পৃষ্ঠা, সাক্ষাৎকার পত্র এবং সিজিআই অর্থ জমাদান স্লিপ জমা দিতে প্রস্তুত থাকুন।
  • আপনার একাধিক পাসপোর্ট থাকলে সাক্ষাৎকারের আগে সেগুলো আলাদা করুন। সাক্ষাৎকারের সময় আপনার আগের সবগুলো পাসপোর্ট সঙ্গে আনতে হবে, কারণ সেগুলো সাক্ষাৎকার গ্রহণকারী কনস্যুলার কর্মকর্তার সামনে উপস্থাপন করতে হতে পারে। তবে পাসপোর্টগুলো কখনোই একত্রে স্ট্যাপল করবেন না।
  • আঙুলের ছাপের ক্ষেত্রে নিশ্চিত করুন আপনার হাত পরিষ্কার ও শুকনো রয়েছে। আঙুলের ছাপ দেওয়ার পর বসুন এবং সাক্ষাৎকারের জন্য অপেক্ষা করুন।
  • আপনি যদি ভিসা সাক্ষাৎকারের জন্য নির্ধারিত তারিখে আসতে অপারগ হন, তাহলে সাক্ষাৎকারের সময় পুনর্নির্ধারণ করতে হবে। আপনি চাইলে ফি প্রদানের দিন থেকে পরবর্তী ১২ মাসের মধ্যে সাক্ষাতের তারিখ পুনর্নির্ধারণ করতে পারবেন। এই ১২ মাসের মধ্যে আপনি যদি সাক্ষাৎকারে উপস্থিত না হন, তাহলে মেয়াদোত্তীর্ণ হওয়ায় আপনার ফি প্রদানের তথ্য মুছে যাবে। সাক্ষাৎকারের সময়সূচি পুনর্নির্ধারণ সম্পর্কে আরও জানতে এখানে ক্লিক করুন

সাক্ষাৎকার:

  • আপনার পাসপোর্ট ও ডিএস-১৬০ নিশ্চিতকরণ পৃষ্ঠাটি কনস্যুলার কর্মকর্তা চাইলেই তার হাতে দেওয়ার জন্য প্রস্তুত রাখুন। কয়েকজনে মিলে যদি আবেদন করে থাকেন, তাহলে সবগুলো পাসপোর্ট একত্রে হস্তান্তর করুন।
  • সময় বাঁচাতে কেবল কর্মকর্তা চাইলেই তাঁকে নথি দিন। আর কর্মকর্তা যদি কোনো নির্দিষ্ট নথি চান, তাহলে তাঁকে কেবল সেই নথিটিই দিন।
  • যে নথিটি ভুয়া বা জাল বলে আপনি জানেন, তা জমা দেবেন না। জমা দেওয়া নথি প্রকৃত ও অকৃত্রিম কি না, সে ব্যাপারে জ্ঞাত থাকার দায়দায়িত্ব আবেদনকারীর। কোনো কর্মকর্তা আপনাকে নথি উপস্থাপন করতে বললে, সেগুলো প্রকৃত ও অকৃত্রিম কি না তা জানার দায়দায়িত্ব আপনার নিজের। যদি নথিগুলো প্রকৃত ও অকৃত্রিম না হয়, তাহলে কোনো তৃতীয় পক্ষ নয়, দায় আপনার ওপরই বর্তাবে। কনস্যুলার কর্মকর্তার যদি সন্দেহ হয় যে, আপনার নথি জাল তাহলে আপনাকে ভিসা দেওয়া হবে না এবং যুক্তরাষ্ট্র ভ্রমণের ক্ষেত্রে আপনি স্থায়ীভাবে নিষিদ্ধ হতে পারেন।
  • সাক্ষাৎকারে প্রশ্নের জবাব দেওয়ার সময় যতটা সম্ভব বিস্তারিত বলুন।
  • আপনি যদি কনস্যুলার কর্মকর্তার সিদ্ধান্তের সঙ্গে একমত হতে না পারেন, তাহলে তাঁদের সঙ্গে তর্ক করতে যাবেন না। আপনি আবারও আবেদন করতে পারবেন। তবে সে ক্ষেত্রে যে বিষয় বা পরিস্থিতির কারণে আপনার আবেদন প্রত্যাখ্যাত হয়েছে, তাতে উন্নতি ঘটেছে কি না, তা আপনাকে গুরুত্বের সঙ্গে মূল্যায়ন করতে হবে।
  • ইংরেজিতে পারদর্শিতা ভিসা পাওয়ার প্রয়োজনীয় শর্ত নয়। সব কনস্যুলার কর্মকর্তাই বাংলা বোঝেন এবং এ ভাষায় কথা বলতে পারেন। তারা ইংরেজি বা বাংলা যে কোন ভাষায় আপনার সাক্ষাৎকার নিতে সানন্দে প্রস্তুত।

সাক্ষাৎকারের পর:

আপনাকে যদি ভিসা দেওয়া হয়, তাহলে কনস্যুলার কর্মকর্তা জানাবেন, কখন ও কীভাবে ভিসা সংযুক্ত পাসপোর্ট সংগ্রহ করতে হবে। সাক্ষাৎকারের সময়সূচি নির্ধারণ করার সময় আপনার বেছে নেওয়া জায়গা থেকেই সাধারণত পাসপোর্ট ও ভিসা সংগ্রহ করা যাবে। মনোনীত জায়গায় পাসপোর্ট পৌঁছানোর পর আপনি একটি ইমেইল পাবেন এই মর্মে যে, আপনার পাসপোর্ট ‘সংগ্রহ করার জন্য প্রস্তুত’। পারিবারিকভাবে আবেদন করে থাকলে পরিবারের একজন মাত্র সদস্য ভিসা সংগ্রহ কেন্দ্র থেকে পাসপোর্টগুলো সংগ্রহ করতে পারবেন।

কিছু যোগ্য আবেদনকারীর ক্ষেত্রে অতিরিক্ত প্রশাসনিক প্রক্রিয়ার প্রয়োজন পড়ে। এই অতিরিক্ত প্রক্রিয়ার জন্য কত সময় লাগতে পারে, তা আন্দাজ করা অসম্ভব। আপনার ক্ষেত্রে প্রক্রিয়ার অগ্রগতি জানতে এখানে ক্লিক করুন

আপনার ভিসা আবেদন প্রত্যাখ্যাত হয়ে থাকলে কনস্যুলার কর্মকর্তা অবিলম্বে পাসপোর্ট ফেরত দেবেন। আপনি যেকোনো সময় আবার নতুন করে সাক্ষাৎকারের জন্য আবেদন করতে পারবেন। যদিও আমাদের পরামর্শ হলো, যে পরিস্থিতির কারণে ভিসা আবেদন প্রত্যাখ্যাত হয়েছে, তা নিরসন বা পরিবর্তন না হওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করুন।

গুরুত্বপূর্ণ:

  • আপনি যদি সশরীরে নিজে ভিসা সংগ্রহ কেন্দ্র থেকে পাসপোর্ট সংগ্রহ করতে না পারেন, তাহলে আপনার অনুমোদিত যে কেউ আপনার পক্ষে তা করতে পারবে। এজন্য আপনাকে অবশ্যই একটি স্বাক্ষরিত অনুমোদন ফরম (পিডিএফ ৬০.২ কিলোবাইট) সরবরাহ করতে হবে।
  • পাসপোর্ট জমা দেওয়া/সংগ্রহের বিষয়ে নির্দেশনা অনুসরণ করুন যা (ভিসাপ্রাপ্ত ও ভিসাপ্রাপ্ত নয়-উভয়ের জন্য প্রযোজ্য) এখানে পাবেন

যুক্তরাষ্ট্রে ভ্রমণের জন্য ভিসার আবেদনকারী প্রত্যেকে সাক্ষাৎকারের সময় সঙ্গে আনবেন

  • পাসপোর্ট, যুক্তরাষ্ট্রে অবস্থান করার সময়ের চেয়ে অন্তত ছয় মাস বেশি মেয়াদ থাকতে হবে।
  • সিজিআই ক্যাশ জমাদান স্লিপ (এমআরভি ফি প্রদান রশিদ)
  • ডিএস-১৬০ আবেদন নিশ্চিতকরণ পৃষ্ঠা
  • সাক্ষাৎকার নিশ্চিতকরণ পত্র

অনুগ্রহ করে লক্ষ্য রাখবেন, শিশুদেরও নিজেদের পাসপোর্ট থাকতে হবে।

নন ইমিগ্র্যান্ট ভিসা আবেদনকারীদের অবশ্যই প্রমাণ করতে হবে যে, তাঁরা যুক্তরাষ্ট্রের অভিবাসন ও জাতীয়তা আইনের ধারাগুলোর আওতায় ভিসা পাওয়ার যোগ্য। এই আইন অনুসারে প্রত্যেক ভিসার আবেদনকারীকে অভিবাসী হতে ইচ্ছুক ধরে নেওয়া হয়। কাজেই বেশিরভাগ নন ইমিগ্র্যান্ট ভিসা আবেদনকারীকে এই ধারণা ভুল প্রমাণে প্রদর্শন করতে হবে যে:

  • তাঁদের ভ্রমণের যৌক্তিক ও অস্থায়ী কারণ রয়েছে
  • তাঁরা সুনির্দিষ্ট ও সীমিত সময়ের জন্য যুক্তরাষ্ট্রে থাকার পরিকল্পনা করেছেন
  • যুক্তরাষ্ট্রের বাইরে তাদের বাড়ি (বেশিরভাগ ক্ষেত্রে, বাংলাদেশে) এবং অন্যান্য পারিবারিক, সামাজিক ও অর্থনৈতিক যোগসূত্র রয়েছে যা তাঁদের ভ্রমণশেষে প্রত্যাবর্তন নিশ্চিত করবে। এমনকি যেসব আবেদনকারী ব্যবসায়িক বা দাপ্তরিক কাজে যুক্তরাষ্ট্র ভ্রমণ করতে চান, তাঁদেরও বাংলাদেশের সঙ্গে তাঁদের ব্যক্তিগত যোগসূত্র প্রদর্শন করতে হবে।

প্রত্যেক আবেদনকারীই আলাদা। কাজেই প্রয়োজনীয় নথির একটি তালিকা দেওয়া সম্ভব নয়। ভিসা আবেদনকারীকে কর্মকর্তার সামনে এমন সব প্রমাণ হাজির করতে হবে, যার মাধ্যমে প্রমাণ হবে যে তাঁরা বাংলাদেশে বা যুক্তরাষ্ট্রের বাইরে অন্য কোনো আবাসে প্রত্যাবর্তন করবেন। আবেদনকারীদের বাংলাদেশে নিজের পারিবারিক, সামাজিক ও অর্থনৈতিক যোগসূত্র নিয়ে আলোচনার জন্য প্রস্তুতি নিয়ে আসার জন্য উৎসাহিত করা হচ্ছে।

প্রয়োজনীয় সহায়ক নথির কিছু উদাহরণ, তবে এর বাইরে যে আর কিছু লাগবে না, তেমন নয়:

  • আগের সব পাসপোর্ট
  • শিক্ষার্থী ভিসা আবেদনকারীদের ক্ষেত্রে পরীক্ষার ফল, প্রতিলিপি ও মানদ- যাচাই পরীক্ষার নম্বর
  • শিক্ষার্থী ভিসা আবেদনকারীদের ক্ষেত্রে তিন থেকে ১২ মাসের ব্যাংক বিবরণী
  • ক্রু ভিসার আবেদন করলে সিম্যান বই
  • স্পাউস ভিসার আবেদন করলে বিয়ের ছবি

মনে রাখবেন!

প্রতিজন আবেদনকারীই আলাদা। আপনার ক্ষেত্রে আপনার নিজের সংশ্লিষ্ট প্রমাণাদিই উপস্থাপন করতে হবে। আবেদনকারীরা বাংলাদেশে তাঁদের যোগসূত্রের বিষয়ে প্রমাণাদি উপস্থাপন করলেও তাঁদের জানা থাকতে হবে যে, অনেক ক্ষেত্রেই সহায়ক নথিপত্র পর্যালোচনা করা হয় না। সহায়ক নথিপত্র হয়তো আবেদনকারীর বাংলাদেশে থাকা যোগসূত্র মূল্যায়ন করতে কর্মকর্তাদের সহায়তা করতে পারে, কিন্তু এই নথিগুলো উপস্থাপন ভিসা পাওয়ার নিশ্চয়তা দেয় না। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে ডিএস-১৬০ আবেদন ফর্মে উল্লেখিত তথ্য এবং সাক্ষাৎকারে আপনার দেওয়া জবাবই নির্ধারণ করে দেয়, আপনি ভিসা পাওয়ার যোগ্য কি না।

বিদেশি সরকারি কর্মকর্তা (এ১/এ২)

বিদেশি কূটনীতিক, সরকারি কর্মকর্তা ও সামরিক বাহিনীর সদস্যরা নিজ দেশের সরকারি কাজে যুক্তরাষ্ট্রে যেতে চাইলে দূতাবাসে এ-ভিসার জন্য আবেদন করতে পারেন। আপনি জাতীয় সরকারের পক্ষে সরকারি কাজ সম্পাদন করার জন্য যুক্তরাষ্ট্র যেতে চাইলেই কেবল এ-ভিসা পেতে পারেন। যদি কর্মকর্তারা বেসরকারি কোনো অনুষ্ঠানে- যার প্রকৃতি বাণিজ্যিক বা প্রতিযোগিতামূলক- যোগ দিতে যুক্তরাষ্ট্রে ভ্রমণ করতে চান, তবে তাদের অন্য ক্যাটাগরির ভিসার আবেদন করতে হবে। এ ধরনের ভ্রমণের জন্য এ-ভিসা দেওয়া হয় না। দাপ্তরিক কাজ সম্পাদনে যুক্তরাষ্ট্র ভ্রমণেচ্ছু বাংলাদেশের স্থানীয় সরকার বা প্রাদেশিক পর্যায়ের কর্মকর্তারা এ-২ ভিসার জন্য যোগ্য নন।

আন্তর্জাতিক সংস্থার কর্মী (জি১/জি২/জি৪)

আন্তর্জাতিক সংস্থা (জি) ভিসা দেওয়া হয় যুক্তরাষ্ট্র ভ্রমণেচ্ছু কূটনীতিক ও অন্য সরকারি কর্মকর্তাদের। সরকার বা রাষ্ট্রপ্রধান (যাঁরা ভ্রমণের উদ্দেশ্য যা-ই থাক এ-ভিসা পেয়ে থাকেন) ছাড়া সরকারের কূটনীতিক বা অন্যান্য সরকারি কর্মকর্তা কী ধরনের ভিসা পাবেন, তা নির্ভর করে যুক্তরাষ্ট্র ভ্রমণের কারণের ওপর। অভিবাসন আইনের আওতায় আবেদনকারীকে আন্তর্জাতিক সংস্থার কর্মী (জি) ভিসা পেতে অবশ্যই নির্দিষ্ট কিছু বিষয় নিশ্চিত করতে হবে। আবেদন পাওয়ার পর আপনি কী ধরনের ভিসা পাবেন, তা নির্ধারণ করবেন কনস্যুলার কর্মকর্তা। আপনার যুক্তরাষ্ট্র ভ্রমণের কারণ অবশ্যই সরকারি কাজ হতে হবে।

জি-১: মনোনীত আন্তর্জাতিক সংস্থায় কোনো স্বীকৃত বিদেশি সরকারের স্থায়ী মিশন সদস্য জি-১ ভিসা আবেদনের জন্য যোগ্য

উল্লেখ্য, ‘জি-১’ ক্যাটাগরির নন ইমিগ্র্যান্ট ভিসার জন্য যোগ্য হতে হলে একজন আবেদনকারীকে অবশ্যই সরকারিভাবে বিদেশি সরকারের প্রতিনিধিত্ব করতে হবে এবং যুক্তরাষ্ট্রে অবস্থিত কোনো আন্তর্জাতিক সংস্থায় স্থায়ী মিশনে নিয়োগপ্রাপ্ত হতে হবে।

জি-২: কোনো স্বীকৃত বিদেশি সরকারের প্রতিনিধি, যিনি মনোনীত কোনো আন্তর্জাতিক সংস্থার (যুক্তরাষ্ট্র যার অন্যতম সদস্য) বৈঠকে যোগ দিতে সাময়িকভাবে যুক্তরাষ্ট্র ভ্রমণ করতে চান, তিনি জি-২ ভিসা আবেদনের জন্য যোগ্য।

জি-৪: জাতিসংঘসহ মনোনীত কোনো আন্তর্জাতিক সংস্থায় (যুক্তরাষ্ট্রের সরকার যার একটি সদস্য) কাজ/নিয়োগের কারণে যুক্তরাষ্ট্র ভ্রমণেচ্ছু ব্যক্তিরা জি-৪ ভিসা আবেদনের জন্য যোগ্য।

আবেদনের ক্ষেত্রে প্রয়োজনীয় বিষয়াদি

দাপ্তরিক এ এবং জি ভিসা দেওয়া হয় যথাযথভাবে করা আবেদন এবং বিদেশি সরকার/আন্তর্জাতিক সংস্থার তরফ থেকে ক’টনৈতিক নোট ভার্বাল পাওয়ার পর। ভিসার জন্য আন্তর্জাতিক সংস্থা/বিদেশি মিশন/মন্ত্রণালয় থেকে দেওয়া নোট ভার্বালে ভ্রমণেচ্ছুর নাম, পদবি ও অবস্থান, তাঁর পাসপোর্ট নম্বর এবং ভ্রমণের কারণ উল্লেখ করতে হবে। সুনির্দিষ্ট কারণ ঠিক হওয়ার আগে ভ্রমণের ক্ষেত্রে নোট ভার্বালে সম্ভাব্য রাষ্ট্রীয় কাজটি উল্লেখ করতে হবে।

আবেদনপত্রটি বাংলাদেশ সরকারের তরফ থেকে এলে তাতে কর্মী যে মন্ত্রণালয়ে কাজ করছেন, সেই মন্ত্রণালয় থেকে জারিকৃত সরকারি আদেশও (জিও) যুক্ত করতে হবে।

কর্মকর্তার সঙ্গে তাঁর স্বামী/স্ত্রী কিংবা নাবালক সন্তানেরা ভ্রমণ করলে নোট ভার্বালে তাঁদের নামও উল্লেখ করতে হবে। আমরা কোনো নোট ভার্বালের সফট কপি গ্রহণ করি না। কাজেই দয়া করে এটি আমাদের ইমেইল করবেন না। নন ইমিগ্র্যান্ট ভিসা আবেদনকারী প্রত্যেককে অবশ্যই অনলাইনে ডিএস-১৬০ পূরণ করতে হবে।

বিদেশি মিশন/মন্ত্রণালয়/আন্তর্জাতিক সংস্থার একজন মনোনীত প্রতিনিধি আবেদনপত্র পৌঁছে দেবেন যাতে নিম্নোক্ত নথিপত্র অবশ্যই দিতে হবে:

একটি কূটনৈতিক নোট ভার্বাল। বিদেশি সরকারের কার্যালয়/আন্তর্জাতিক সংস্থার পাঠানো নোটে স্পষ্টভাবে উল্লেখ থাকতে হবে:

  • নাম ও জন্মের তারিখ
  • অবস্থান ও পদবি
  • কাজের বা ভ্রমণের জায়গা
  • ভ্রমণের কারণ
  • দায়িত্বের সংক্ষিপ্ত বিবরণ
  • ভ্রমণের তারিখ
  • যুক্তরাষ্ট্রে অবস্থান/কাজের সম্ভাব্য সময়সীমা

নোট ভার্বাল, জিও এবং ডিএস-১৬০ আবেদনপত্রে ভ্রমণের কারণ, ভ্রমণের সম্ভাব্য তারিখ ইত্যাদি বিষয়ক তথ্যে সামঞ্জস্য থাকতে হবে।

১. সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় থেকে সরকারি আদেশের (জিও) মূল কপি, যাতে আবেদনকারী যে সফরকালে সরকারি কাজে নিয়োজিত থাকবেন সেটিসহ অন্যান্য শর্তের উল্লেখ থাকবে। মন্ত্রণালয়ের উচিত হবে বাংলা ও ইংরেজি উভয় ভাষায় জিও সরবরাহ করা। ‘জি-৪’ ভিসার আবেদনের জন্য সরকারি আদেশ (জিও) প্রয়োজনীয় নয়।

২. ডিএস-১৬০: অনলাইন নন ইমিগ্র্যান্ট ভিসা আবেদন নিশ্চিতকরণ পৃষ্ঠা

  • ডিএস-১৬০-এ সরবরাহকৃত তথ্য সত্যি ও যথাযথ হতে হবে
  • পাসপোর্টে পূর্ণ বানানের স্বাক্ষর না থাকলে ডিএস-১৬০ অনলাইন ভিসা আবেদনে আবেদনকারীর পূর্ণ নামসহ স্বাক্ষর থাকতে হবে।
  • যদি ডিএস-১৬০ অনলাইন ভিসা আবেদনে আবেদনকারীর পূর্ণ নামসহ স্বাক্ষর না থাকে, তবে ডিএস-১৬০ নিশ্চিতকরণ পৃষ্ঠায় পূর্ণ নাম লিখিত থাকতে হবে।

১. ডিএস-১৬০ আবেদনে একটি বৈধ ছবি আপলোড করতে হবে

২. ডিএস-১৬০ অনলাইন আবেদনে পূর্ণাঙ্গ তথ্য দিতে ব্যর্থ হলে দাপ্তরিক এ এবং জি ভিসা আবেদন সময়মতো এগোনোর ক্ষেত্রে সমস্যা হতে পারে

৩. যুক্তরাষ্ট্রে সম্ভাব্য অবস্থানের চেয়ে অন্তত ছয় মাস বেশি মেয়াদ রয়েছে এমন মেশিন রিডেবল (যন্ত্রে পাঠযোগ্য) পাসপোর্ট থাকতে হবে। কেবলমাত্র সাম্প্রতিকতম পাসপোর্টই জমা দিতে হবে

৪. একটি ছবি (যুক্তরাষ্ট্রের ভিসা আবেদনের জন্য প্রয়োজনীয় ছবির বিষয়ে নির্দেশনা পাওয়া যাবে এখানে: www.ustraveldocs.com/bd

পরিবারের সদস্যদের ক্ষেত্রে, জমা দিন:

১. একটি পাসপোর্ট (যুক্তরাষ্ট্রে সম্ভাব্য অবস্থানের চেয়ে অন্তত ছয় মাস বেশি মেয়াদ রয়েছে এমন)

২. ডিএস-১৬০: অনলাইন নন ইমিগ্র্যান্ট ভিসা আবেদন নিশ্চিতকরণ পৃষ্ঠা। ডিএস-১৬০ আবেদনে অবশ্যই একটি বৈধ ছবি আপলোড করতে হবে।

৩. আবেদনের তারিখের আগের ছয় মাসের মধ্যে তোলা একটি ছবি। যুক্তরাষ্ট্রের ভিসা আবেদনের জন্য প্রয়োজনীয় নির্দেশনা পাওয়া যাবে এখানে- http://www.ustraveldocs.com/bd

৪. বিদেশি সরকার/বিদেশি মিশন/আন্তর্জাতিক সংস্থা থেকে একটি পরিচয়পত্র (এলওআই), যাতে উল্লেখ থাকবে

  • আবেদনকারীর স্বামী/স্ত্রী ও অপ্রাপ্তবয়স্ক সন্তানদের নাম ও জন্মতারিখ;
  • মূল আবেদনকারীর অবস্থান ও পদবি;
  • মূল আবেদনকারীর সঙ্গে সম্পর্র্ক
  • সফরের বা কাজের জায়গা;
  • সফরের কারণ;
  • কাজের সংক্ষিপ্ত বিবরণ;
  • সফরের তারিখ;
  • মূল আবেদনকারীর সম্ভাব্য যুক্তরাষ্ট্রে অবস্থানের বা কাজের সময়
  • মূল আবেদনকারীর নোট ভার্বাল, জিও এবং সংশ্লিষ্ট সহায়ক নথিপত্রের অনুলিপি (পরিবারের সদস্যদের আলাদাভাবে ভ্রমণের ক্ষেত্রে)

আবেদনপত্র জমাদান

দাপ্তরিক ভিসা আবেদন জমা দিতে বিদেশি সরকার/আন্তর্জাতিক সংস্থার মনোনীত প্রতিনিধি বারিধারার মাদানি অ্যাভিনিউয়ে অবস্থিত যুক্তরাষ্ট্র দূতাবাসের কনস্যুলার শাখায় যেকোনো রোববার, সোমবার, বুধবার ও বৃহস্পতিবার দুপুর ২টা থেকে ৩টার মধ্যে আসতে পারেন। কনস্যুলার গেট-২ এ যাওয়ার জন্য মনোনীত প্রতিনিধিকে অবশ্যই মাদানি অ্যাভিনিউয়ের নিরাপত্তা রক্ষীর কাছে কূটনৈতিক নোট/ নোট ভার্বাল প্রদর্শন করতে হবে। নিরাপত্তা সংশ্লিষ্ট প্রক্রিয়া সম্পন্ন হওয়ার পর মনোনীত প্রতিনিধিকে কনস্যুলার অভ্যর্থনা কক্ষে যেতে হবে।

সব কূটনৈতিক/দাপ্তরিক ভিসার আবেদন অবশ্যই যুক্তরাষ্ট্রের উদ্দেশ্যে রওনা হওয়ার সম্ভাব্য তারিখের ৩০ দিন আগে জমা দিতে হবে।

আবেদনপত্রের বাহককে একটি চিঠি এবং বারকোড নম্বরসহ ডিএস-১৬০-এর একটি কপি দেওয়া হবে যা দিয়ে আবেদনের অগ্রগতি অনলাইনে পর্যবেক্ষণ করা যাবে। এই চিঠি ও বারকোড নম্বরসহ ডিএস-১৬০ নিশ্চিত করে যে দাপ্তরিক নন ইমিগ্র্যান্ট এ এবং জি ভিসার আবেদন প্রক্রিয়া সম্পন্ন হয়েছে।

পাসপোর্ট সংগ্রহ

কনস্যুলার শাখায় আবেদন জমা পড়ার ৩০ দিনের মধ্যে সরকারি/কূটনৈতিক ভিসা সাধারণভাবে তোলার জন্য প্রস্তুত থাকবে। যখন আবেদনের স্ট্যাটাস পরিবর্তিত হয়ে ‘ইস্যু করা হয়েছে’ দেখানো হবে তখন ভিসা সম্বলিত পাসপোর্ট সংগ্রহের জন্য তৈরি থাকবে। আবেদনকারী /বিদেশি সরকারি অফিস/আন্তর্জাতিক সংস্থা তাদের অনুমোদিত বাহক পাঠিয়ে এটি সংগ্রহ করতে পারে।

কখন: আবেদনটির স্ট্যাটাস ‘ইস্যু করা হয়েছে’ মর্মে পরিবর্তিত হওয়া থেকে দূতাবাসের তিন (৩) কার্য দিবস পর

কোথায়: ঢাকার বারিধারার আমেরিকান দূতাবাসের কনস্যুলার শাখা

সময়:  রোববার, সোমবার, বুধবার এবং বৃহস্পতিবার ঠিক সকাল ১১:০০ টায়

কী আনবেন: ডিএস-১৬০ নিশ্চিতকরণ পেজ এবং অনুমোদিত ব্যক্তির বৈধ ফটো আইডিসহ একটি অনুমোদনের চিঠি।

কিছু ক্ষেত্রে ব্যক্তিগত সাক্ষাতকারের প্রয়োজন হয়। যদি তা হয় তবে মনোনীত প্রতিনিধি সাক্ষাতকারের অ্যাপয়েনমেন্টের সময়সূচি কীভাবে স্থির হবে তার নির্দেশনা সম্বলিত চিঠি পাবেন। দয়া করে মনে রাখবেন, কিছু ক্ষেত্রে বাড়তি কিছু প্রক্রিয়া দরকার হতে পারে। এটি ভিসা দেওয়ার সময়সীমার ওপর প্রভাব ফেলতে পারে। যেসব ক্ষেত্রে বাড়তি প্রক্রিয়ার দরকার হয়, সেসব ক্ষেত্রে অবশ্যই ত্রিশ দিনের বেশি সময় লাগবে। অনুগ্রহ করে আপনার আবেদনের অবস্থা জানতে প্রতিদিন দেখতে থাকুন। সর্বশেষ অবস্থা জানতে আপনার ডিএস-১৬০ ফর্মে পাওয়া বারকোড নম্বরটি ব্যবহার করুন।

জরুরি ভ্রমণের জন্য পাসপোর্ট প্রত্যাহার/ফেরত নেওয়া

কোনো আবেদন প্রক্রিয়াধীন থাকা অবস্থায় আবেদনকারীরা ব্যক্তিগত/অফিসিয়াল ভ্রমণজনিত প্রয়োজনে তাদের পাসপোর্ট ফেরত চাইতে পারেন। এরকম ক্ষেত্রে কনস্যুলার বিভাগ থেকে পাসপোর্ট ফেরত দেওয়া হবে। মনোনীত বাহককে যে কোনো রোববার, সোমবার, বুধবার বা বৃহস্পতিবার ঠিক দুপুর ২ টায় কনস্যুলার বিভাগে আসতে হবে। ভ্রমণ শেষ হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে আবেদনকারীকে তাদের পাসপোর্ট আবার জমা দিতে হবে। অনুগ্রহ করে মনে রাখবেন, পাসপোর্ট ফিরিয়ে নেওয়া হলে সাধারণত আবেদন প্রক্রিয়া শেষ করা স্থগিত থাকে।

আবেদনকারীরা ব্যক্তিগতভাবে আসার আগে বা পাসপোর্ট প্রত্যাহারের জন্য মনোনীত কাউকে পাঠানোর আগে অবশ্যই তার পুরো নাম এবং পাসপোর্ট নম্বরসহ একটি ইমেইল পাঠাবেন এই ঠিকানায়: support-bangladesh@ustraveldocs.com এই ইমেইলে নিজের নাম এবং পাসপোর্ট নম্বর উল্লেখ করতে হবে।

ব্যক্তিগত উপস্থিতি ও ভিসা ফি

সরকারি/দাপ্তরিক কাজে যারা যুক্তরাষ্ট্র ভ্রমণ করতে চান তাদের ‘এ’ ও ‘জি’ ভিসার জন্য ব্যক্তিগত উপস্থিতির সাধারণত দরকার হয় না। মেশিন রিডেবল ভিসা (এমআরভি) ফি-র বিষয়ে জ্ঞাতব্য হচ্ছে, নন ইমিগ্র্যান্ট এ ও জি ভিসার ক্ষেত্রে মনোনীত ব্যক্তিদের ১৬০ ডলারের ভিসা প্রক্রিয়ার ফি দিতে হবে না।

‘এ’ ও ‘জি’ ভিসার আবেদনকারীদের নিজস্ব কর্মী

এওয়ান, জিওয়ান, জিফোর বৈধ ভিসাধারীদের ব্যক্তিগত কর্মী, সহকারী অথবা গৃহকর্মে নিয়োজিত ব্যক্তিদের এথ্রি ও জিফাইভ ভিসা ইস্যু করা হতে পারে। এসব আবেদনকারীকে বায়োমেট্রিক ফিঙ্গারপ্রিন্ট এবং সাক্ষাৎকার দিতে হবে।

কূটনীতিকদের জন্য ভিসা ফি এবং পর্যটক হিসেবে ভ্রমণ

‘এ’ বা ‘জি’ ভিসার জন্য উপযুক্ত ব্যক্তিদের ভিসা ফি দিতে হয় না। এর পাশাপাশি, কূটনৈতিক পাসপোর্টধারী ব্যক্তিরাও ভিসার ধরন বা ভ্রমণের উদ্দেশ্য যা-ই হোক না কেন (পর্যটনসহ), মেশিন রিডেবল ভিসা (এমআরভি) ফি থেকে অব্যাহতি পেতে পারেন। আপনার যদি কূটনৈতিক পাসপোর্ট (অর্থাৎ নিয়মিত, সরকারি/কর্মকর্তা বা বিশেষ নয়) থাকে এবং আপনি যদি পর্যটক ভিসার জন্য আবেদন করে থাকেন, তবে অনুগ্রহ করে ভিসা ফি দেবেন না, যে পর্যন্ত না কোনও কনস্যুলার অফিসার তা দিতে বলেন।

তবে কূটনৈতিক পাসপোর্ট বহনকারীদেরও অবশ্যই সশরীরে সাক্ষাৎকার এবং আঙুলের ছাপের জন্য উপস্থিত থাকতে হবে। আপনার সুবিধার জন্য আমাদের পরামর্শ হচ্ছে, আপনি এমআরভি ফি দেওয়ার আগে support-bangladesh@ustraveldocs.com ঠিকানায় ইমেইল করে পর্যটক ভিসার আবেদন করতে চান এ কথাটি কনস্যুলার বিভাগকে নিশ্চিত করুন।

ভিসা অব্যাহতি কর্মসূচিতে (ভিডব্লিউপি) – ভিডব্লিউপি অংশগ্রহণকারী দেশগুলোর নাগরিকদের ৯০ দিন বা তার কম সময়ের জন্য যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশের জন্য ভিসার প্রয়োজন হয় না। তবে এজন্য কিছু শর্ত পূরণ হতে হবে।

ভিডব্লিউপি সুবিধা পেতে হলে ভ্রমণকারীদের অবশ্যই নির্দিষ্ট যোগ্যতা থাকতে হবে এবং ভ্রমণের আগে বৈধ ‘ইলেকট্রনিক সিস্টেম ফর ট্রাভেল অথরাইজেশন’ (ইএসটিএ) অনুমোদন থাকতে হবে। ৩৮টি দেশের নাগরিকরা ভিসা ছাড়া যুক্তরাষ্ট্রে যাওয়ার যোগ্য। বাংলাদেশ এর মধ্যে নেই। ভিডব্লিউপি কর্মসূচিভুক্ত দেশে বসবাস কাউকে ভিডব্লিউপি সুবিধার অধিকারী করে না। ভিডব্লিউপি সম্পর্কে আরও তথ্য পাওয়া যাবে এখানে: ভিসা ওয়েভার প্রোগ্রাম (ভিডব্লিউপি)

ইএসটিএ – এটি একটি স্বয়ংক্রিয় ব্যবস্থা যা কোন ভ্রমণকারী ভিসা অব্যাহতি কর্মসূচির (ভিডব্লিউপি)-আওতায় যুক্তরাষ্ট্রে যাওয়ার যোগ্য কিনা তা যাচাই করে। তবে ইএসটিএ-র মাধ্যমে অনুমোদন একজন ভ্রমণকারীকে যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশের নিশ্চয়তা দেয় না। ভ্রমণকারী যুক্তরাষ্ট্রে পৌঁছানোর পর দেশটির কাস্টমস অ্যান্ড বর্ডার প্রটেকশন কর্মকর্তারা তাকে প্রবেশ করতে দেওয়া যাবে কিনা তা স্থির করেন। ইএসটিএ অ্যাপলিকেশন বায়োগ্রাফিক তথ্য সংগ্রহ করে এবং ভিডব্লিউপি’র যোগ্যতা সংক্রান্ত প্রশ্নের জবাব দেয়। ভ্রমণের আগে যে কোন সময় ইএসটিএ আবেদন করা যেতে পারে। তবে ভ্রমণের পরিকল্পনা শুরু করার সঙ্গে সঙ্গে কিংবা বিমানের টিকিট কাটার আগে এটি করার পরামর্শ দেওয়া হয়ে থাকে। বাংলাদেশ ভিডব্লিউপি কর্মসূচিতে অংশগ্রহণকারী দেশ নয় বলে বাংলাদেশি পাসপোর্টধারীদের জন্য ইএসটিএ নিবন্ধনের প্রয়োজন নেই। ইলেকট্রনিক সিস্টেম ফর ট্রাভেল অথরাইজেশন-এ ইএসটিএ বিষয়ে আরও তথ্য পাওয়া যাবে।

গ্লোবাল এন্ট্রি প্রোগ্রাম–  গ্লোবাল এন্ট্রি প্রোগ্রাম হচ্ছে ইউএস কাস্টমস অ্যান্ড বর্ডার প্রটেকশন (সিবিপি) এর একটি কর্মসূচি যা পূর্ব অনুমোদিত, কম ঝুঁকিপূর্ণ ভ্রমণকারীদের যুক্তরাষ্ট্রে পৌঁছবার পর দ্রুত বন্দর থেকে ছাড়া পেতে সহায়তা করে। এর সদস্যরা নির্বাচিত কিছু বিমানবন্দরের স্বয়ংক্রিয় কিওস্ক দিয়ে যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশ করেন। গ্লোবাল এন্ট্রি প্রোগ্রামের জন্য ভ্রমণকারীদের অবশ্যই পূর্ব অনুমোদিত হতে হবে। তালিকাভুক্তির আগে সব আবেদনকারীর বিষয়ে জোরালোভাবে তথ্য যাচাই করা হয় এবং তাদেরকে সশরীরে সাক্ষাৎকার দিতে হয়। এ কর্মসূচির বিষয়ে আরও তথ্য পাওয়া যাবে গ্লোবাল এন্ট্রি প্রোগ্রাম-এ।

নন ইমিগ্র্যান্ট ভিসা সাক্ষাৎকার অব্যাহতি কর্মসূচি

যুক্তরাষ্ট্র সরকার কিছু নির্দিষ্ট যোগ্যতাসম্পন্ন নন-ইমিগ্র্যান্ট ভিসা আবেদনকারীকে কনস্যুলার অফিসারের সঙ্গে সাক্ষাৎকার ছাড়াই ভিসা নবায়নের অনুমতি দেয়। এই কর্মসূচিটি প্রথমবারের আবেদনকারীদের জন্য নয়। এটি কেবলমাত্র ভিসা নবায়ন করছেন এমন নির্দিষ্ট কিছু আবেদনকারীর জন্য। সাধারণভাবে, যোগ্য আবেদনকারী হবেন তারাই যারা ভিসা নবায়ন করছেন, যারা কিনা বাংলাদেশের নাগরিক বা এদেশের বাসিন্দা এবং বর্তমানে বাংলাদেশে বসবাস করছেন এবং আগে যে ধরনের ভিসা দেওয়া হয়েছিল সে ধরনের ভিসার জন্যই আবেদন করছেন। তাদের আগের ভিসা ইস্যুর তারিখ ১ জানুয়ারি, ২০০৮ বা এর পরের হতে হবে। আবেদনকারীদের কোনো ক্যাটাগরির আগের ভিসা প্রত্যাখ্যাত হলে চলবে না। আগের ভিসা প্রত্যাহার হলে, হারিয়ে বা চুরি গেলেও চলবে না। এটা নিশ্চিত করতে হবে যে, আবেদনকারী কখনো যুক্তরাষ্ট্রের অভিবাসন আইন এবং/বা বিধিবিধানের কোনও লঙ্ঘন করেননি। এছাড়াও আগের ভিসা ইস্যু হওয়ার পর থেকে আবেদনকারীর নাম, জন্মের তারিখ ও স্থান এবং জাতীয়তা পরিবর্তন হওয়া যাবে না।

লক্ষ্য করুন, ভিসা সাক্ষাৎকার অব্যাহতি কর্মসূচির মাধ্যমে নন ইমিগ্র্যান্ট ভিসা নবায়ন করতে চাইলে আপনার আবেদন নিয়ে কাজ করা শুরু করতে ৪৫ দিন পর্যন্ত লাগতে পারে। কর্তৃপক্ষের বিবেচনার জন্য ভিসার আবেদনপত্র ও পাসপোর্ট জমা দেওয়ার পর আপনার কেস সম্পন্ন না হওয়া পর্যন্ত পাসপোর্ট ছাড়া থাকার জন্য তৈরি থাকুন।

সাক্ষাৎকার থেকে অব্যাহতি পেতে, আবেদনকারীদের যা করতে হবে

১. ‘সাক্ষাৎকার অব্যাহতি’ তালিকায় উল্লেখিত শর্তের ভিত্তিতে অব্যাহতি পাওয়ার ব্যাপারে নিজেদের যোগ্যতা নির্ধারণ

২. আপনার পূর্ব নির্ধারিত নথি পাঠানোর স্থানে ভিসা আবেদনের প্যাকেজটি জমা দিন

৩. ভিসা সাক্ষাৎকার অব্যাহতির আবেদনে অবশ্যই নিম্নোক্ত বিষয়গুলো থাকতে হবে:

ক) অনলাইন ডিএস ১৬০ ফরম এর নিশ্চিতকরণ পাতাটি
খ) ড্রপবক্স নিশ্চয়তার চিঠি
গ) সিজিআই ক্যাশ জমা দেওয়ার রশিদ (এমআরভি ফি রশিদ)
ঘ) যুক্তরাষ্ট্রে থাকার পরিকল্পিত সময়ের পর আরও ছয় মাস মেয়াদ থাকা বৈধ পাসপোর্ট
ঙ) অনলাইন ডিএস-১৬০ ফর্মটিতে একটি ছবি আপলোড করতে হবে। অনুগ্রহ করে ছবির প্রয়োজনীয় ফরম্যাট দেখুন এখানে
চ) সংশ্লিষ্ট ভিসার ধরনের সঙ্গে সম্পর্কিত আরও নথি যা চেকলিস্টে আছে।

কোন ধরনের ভিসার জন্য আবেদন করা হচ্ছে তার ওপর নির্ভর করে আরও কিছ“র দরকার হতে পারে। এই ওয়েবসাইটে ভিসার শ্রেণি অনুযায়ী প্রয়োজনীয় বিষয়ের তালিকা তুলে ধরা হয়েছে।   এখানে জবাব নেই এমন প্রশ্নগুলো এখানে করা যেতে পারে: support-bangladesh@ustraveldocs.com

দ্রষ্টব্য: যদি জাহাজের ক্রু সদস্যদের শুধু সি ১/ডি ভিসা থাকে এবং অতীতে তারা বি ১/ বি ২ ভিসা না পেয়ে থাকেন এবং তারা যদি সি ১/ ডি এবং বি ১/ বি ২ উভয় ভিসার জন্য একসঙ্গে আবেদন করতে চান তবে তাদের সাক্ষাৎকার অব্যাহতি কর্মসূচির আওতায় ভিসা নবায়ন না করে অবশ্যই নিয়মিত পদ্ধতিতে সশরীরে সাক্ষাৎকার দিতে হবে।

এ বিষয়ে আরো তথ্যের জন্য এখানে ক্লিক করুন

বৈধ ভিসাসহ পাসপোর্ট হারিয়ে/চুরি যাওয়া

আমার যুক্তরাষ্ট্রের বৈধ ভিসাসহ পাসপোর্ট হারিয়ে গেলে বা চুরি হয়ে গেলে কী করব?

যদি আপনার যুক্তরাষ্ট্রের বৈধ ভিসা সম্বলিত পাসপোর্ট হারিয়ে বা চুরি হয়ে যায়, তাহলে আপনাকে দ্রুত ঘটনাটি ঢাকার যুক্তরাষ্ট্র দূতাবাসের কনস্যুলার বিভাগে জানাতে হবে। পাসপোর্ট হারিয়ে যাওয়ার বিষয়টি অবশ্যই স্থানীয় থানায়ও জানিয়ে পুলিশ রিপোর্ট সংগ্রহ করতে হবে (জিডি বা সাধারণ ডায়েরি)। আর এ নথিটি যদি বাংলা ভাষায় হয়ে থাকে তবে অনুগ্রহ করে আমাদের একটি ইংরেজি অনুবাদকৃত কপি দিন)। তারপর আপনার ভিসা চুরি যাওয়ার বিষয়টি জানিয়ে নিম্নলিখিত কাগজপত্রসহ support-bangladesh@ustraveldocs.com এই ঠিকানায় ইমেইল পাঠাবেন:

১.  লস্ট অ্যান্ড স্টোলেন ফর্ম পূরণ করতে হবে (লস্ট অ্যান্ড স্টোলেন ফর্ম – পিডিএফ ১৬৬ কেবি)

২. পুলিশ রিপোর্টের (জিডি) অনুলিপি।

আপনার হারিয়ে ফেলা ভিসা সঙ্গে সঙ্গে বাতিল হয়ে যাবে। আপনার পাসপোর্টটি পরে কখনো উদ্ধার হলেও ওই ভিসা আর যুক্তরাষ্ট্রে ভ্রমণের জন্য ব্যবহার করা যাবে না।

হারিয়ে যাওয়া বা চুরি হওয়া যুক্তরাষ্ট্রের ভিসা আবার পাওয়া যাবে না বা এর প্রতিলিপি মিলবে না। নতুন পাসপোর্ট পাওয়ার পর আপনি প্রয়োজনে পরে নতুন ভিসার জন্য আবেদন করতে পারবেন। আমাদের ওয়েবসাইট www.ustraveldocs.com/bd এর মাধ্যমে আপনাকে সাক্ষাৎকার নির্ধারণ করতে হবে। যুক্তরাষ্ট্রের নন-ইমিগ্র্যান্ট ভিসার আবেদনের বিষয়ে আরও তথ্যের জন্য এখানে ক্লিক করুন।