ইমিগ্র্যান্ট ভিসা

বাংলাদেশের নাগরিক ও বাসিন্দাদের জন্য যুক্তরাষ্ট্রের ইমিগ্র্যান্ট ভিসা কার্যক্রম সম্পন্ন করা হয় ঢাকায় অবস্থিত যুক্তরাষ্ট্র দূতাবাস থেকে।

কোনো বিদেশি নাগরিককে যুক্তরাষ্ট্রের ইমিগ্র্যান্ট ভিসার আবেদন করতে হলে সাধারণত তাকে অবশ্যই যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিক বা বৈধ স্থায়ী নাগরিক এমন ঘনিষ্ঠ আত্মীয় কিংবা যুক্তরাষ্ট্রের সম্ভাব্য নিয়োগকর্তার স্পনসর পেতে হয়। ইমিগ্র্যান্ট ভিসার জন্য আবেদনের পূর্বে তার পিটিশন অনুমোদিত হতে হবে। সংশ্লিষ্ট বিদেশি নাগরিকের পক্ষে তার স্পনসর ইউএস সিটিজেনশিপ অ্যান্ড ইমিগ্রেশন সার্ভিসেসে (ইউএসসিআইএস) পিটিশন পূরণ করার মধ্য দিয়ে এই প্রক্রিয়া শুরু করবে। আপনি চাইলে ঠিকানায় আমাদের ভিসার শ্রেণি বিষয়ক নির্দেশিকা দেখে ইমিগ্র্যান্ট ভিসার বিভিন্ন ধরন সম্পর্কে জানতে পারবেন। তারপর ঠিকানায় ইমিগ্র্যান্ট ভিসা প্রক্রিয়া  অপশনে ঢুকে নির্দেশিত ধাপগুলো অনুসরণ করে ইমিগ্র্যান্ট ভিসার আবেদন শুরু করতে পারেন।

ইউএসসিআইএস কর্তৃক আপনার পিটিশন অনুমোদিত হওয়া এবং আপনি ন্যাশনাল ভিসা সেন্টারের (এনভিসি) প্রাথমিক প্রক্রিয়া সম্পন্ন করার পর পরবর্তী করণীয় বিষয়ে নির্দেশনার জন্য এই ওয়েবসাইটে দেওয়া তথ্যগুলোর পাশাপাশি এনভিসির নির্দেশনাগুলো পর্যালোচনা করুন।

কোভিড-১৯ চলাকালীন সময়ে এলপিআর (গ্রীন কার্ডধারীদের) জন্য প্রয়োজনীয় তথ্য

যুক্তরাষ্ট্রে ভ্রমণের জন্য কোভিড-১৯ পরীক্ষার প্রয়োজনীয়তা  

রোগ নিয়ন্ত্রণ ও প্রতিরোধ কেন্দ্রগুলি (সিডিসি) যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশকারী সমস্ত বিমান যাত্রীদের প্রস্থানের ৭২ ঘন্টার মধ্যে নেওয়া একটি নেগেটিভ কোভিড-১৯ পরীক্ষা (SARS-CoV-2 এর জন্য জাতীয় কর্তৃপক্ষ কর্তৃক অনুমোদিত একটি ভাইরাল সনাক্তকরণ পরীক্ষা) উপস্থাপন করতে হবে যা ২৬ শে জানুয়ারি ২০২১ থেকে কার্যকর। যাত্রা শুরুর পূর্বে অবশ্যই সমস্ত যাত্রীদের নেগেটিভ পরীক্ষার ফলাফল বিমান সংস্থার নিশ্চিত করতে হবে।যদি যাত্রীরা কোনও নেগেটিভ পরীক্ষা বাসুস্থতার ডকুমেন্টেশন প্রদান না করে তবে বিমান সংস্থা যাত্রীদের যাত্রা প্রত্যাখ্যান করবে।এই প্রয়োজনীয়তা ভিসা আবেদন প্রক্রিয়া থেকে পৃথক।

অভিবাসন ভিসাসমূহ