যুক্তরাষ্ট্রের সেক্রেটারি অব স্টেট

অ্যান্টনি জে. ব্লিঙ্কেন

অ্যান্টনি জে. ব্লিঙ্কেন গত ২৬ জানুয়ারি ২০২১ তারিখে যুক্তরাষ্ট্রের ৭১তম সেক্রেটারি অফ স্টেট হিসেবে শপথ নিয়েছেন।

গত ২৩ নভেম্বর, ২০২০ তিনি প্রেসিডেন্ট বাইডেন কর্তৃক মনোনীত হন, ২৬ জানুয়ারি, ২০২১ যুক্তরাষ্ট্র সিনেটে তাঁর নাম চূড়ান্ত হয় এবং পরের দিন তিনি ভাইস প্রেসিডেন্ট কমলা হ্যারিস’র কাছে শপথ গ্রহণ করেন।

জনাব ব্লিঙ্কেন তিন দশক ধরে ও তিনজন প্রেসিডেন্টের প্রশাসনে থেকে যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র নীতি বিকশিত করার মাধ্যমে যুক্তরাষ্ট্রের স্বার্থ সুরক্ষা ও আমেরিকার জনগণের জন্য সুফল নিশ্চিত করতে সহায়তা করেছেন। তিনি ২০১৫ থেকে ২০১৭ পর্যন্ত প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার ডেপুটি সেক্রেটারি অফ স্টেট হিসেবে এবং তার আগে প্রেসিডেন্ট ওবামার প্রিন্সিপ্যাল ডেপুটি ন্যাশনাল সিকিউরিটি অ্যাডভাইজর হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। জনাব ব্লিঙ্কেন এই পদে থেকে প্রশাসনের পররাষ্ট্র নীতি সুগঠিত করার লক্ষ্যে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের ডেপুটিদের সমন্বয়ে গঠিত প্রধান কমিটির সভাপতিত্ব করেন।

ওবামা প্রশাসনের প্রথম মেয়াদে জনাব ব্লিঙ্কেন তৎকালীন ভাইস প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা ছিলেন। এটা ছিলো একটি দীর্ঘ পেশাগত সম্পর্কের ধারাবাহিকতা যা ২০০২ সালে শুরু হয়েছিলো যখন জনাব ব্লিঙ্কেন যুক্তরাষ্ট্র সিনেটের বৈদেশিক সম্পর্ক বিষয়ক কমিটিতে ডেমোক্র্যাটিক স্টাফ ডিরেক্টর হিসেবে তাঁর ছয়-বছরের মেয়াদকাল শুরু করেন। তৎকালীন সিনেটর বাইডেন ২০০১ থেকে ২০০৩ এবং ২০০৭ থেকে ২০০৯ পর্যন্ত সেই কমিটির সভাপতি ছিলেন।

ক্লিনটন প্রশাসনের সময় জনাব ব্লিঙ্কেন ইউরোপ, ইউরোপীয় ইউনিয়ন ও নেইটো (NATO)-ভুক্ত দেশগুলোর বিষয়ে প্রেসিডেন্টের প্রধান উপদেষ্টা তথা ইউরোপিয়ান অ্যাফেয়ার্স’র সিনিয়র ডিরেক্টর হিসেবে দুই বছর দায়িত্বপালনসহ জাতীয় নিরাপত্তা পরিষদের সদস্য হিসেবে কাজ করেছেন। তিনি প্রেসিডেন্ট ক্লিনটনের পররাষ্ট্র নীতি বিষয়ে প্রধান বক্তৃতা লেখক হিসেবে চার বছর অতিবাহিত করেন এবং জাতীয় নিরাপত্তা পরিষদের কৌশলগত পরিকল্পনা দলের নেতৃত্ব দেন।

জনাব ব্লিঙ্কেনের সরকারী চাকুরী শুরু হয় স্টেট ডিপার্টমেন্টে। ১৯৯৩ থেকে ১৯৯৪ সাল পর্যন্ত তিনি ছিলেন তৎকালীন ব্যুরো অফ ইউরোপিয়ান অ্যান্ড কানাডিয়ান অ্যাফেয়ার্স নামে পরিচিত দপ্তরের বিশেষ সহকারী। প্রায় ৩০ বছর আগে যে বিভাগে কাজের মাধ্যমে তাঁর সরকারী চাকুরী শুরু হয়েছিলো, বর্তমানে তিনি সে বিভাগের গর্বিত পরিচালক।

সরকারের বাইরে ব্লিঙ্কেন ব্যক্তিমালিকানাধীন খাত, সুশীল সমাজ ও সাংবাদিকতা বিষয়ে কাজ করেছেন। তিনি ভূ-রাজনীতি ও জাতীয় নিরাপত্তা বিষয়ে নিবিষ্ট আন্তর্জাতিক কৌশলগত পরামর্শক প্রতিষ্ঠান ওয়েস্ট-এক্সেক অ্যাডভাইজর’র প্রতিষ্ঠাতা ছিলেন। ২০০১ থেকে ২০০২ সাল পর্যন্ত তিনি ছিলেন সেন্টার ফর স্ট্র্যাটেজিক অ্যান্ড ইন্টারন্যাশনাল স্টাডিজ’র সিনিয়র ফেলো। সরকারী চাকুরীতে যোগদানের আগে জনাব ব্লিঙ্কেন নিউ ইয়র্ক ও প্যারিসে আইন চর্চা করেন। এছাড়াও তিনি দি নিউ ইয়র্ক রিপাবলিক ম্যাগাজিনের প্রতিবেদক ছিলেন এবং মিত্র বনাম মিত্র: আমেরিকা, ইউরোপ ও সাইবেরিয়ার পাইপলাইন সংকট (প্রেইজার, ১৯৮৭) শিরোনামের গ্রন্থের লেখক।
জনাব ব্লিঙ্কেন প্যারিসে গ্রেড স্কুল ও হাইস্কুলে লেখাপড়া করেন এবং উচ্চ সম্মানসহ ফরাসী স্নাতক ডিগ্রি অর্জন করেন। তিনি হার্ভার্ড কলেজ ও কলাম্বিয়া ল স্কুলের স্নাতক। তিনি ও তাঁর স্ত্রী ইভান রায়ানের দু’টি সন্তান আছে।