যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট

President Donald J. Trumpডোনাল্ড জে ট্রাম্প হলেন আমেরিকান সাফল্যগাথার উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত। তিনি আজীবন ব্যবসা ও উদ্যোক্তার সাফল্যের নিরন্তর মানদণ্ড তৈরি করেছেন, বিশেষ করে আবাসন, খেলাধূলা এবং বিনোদন মাধ্যমে । একইভাবে রাজনীতি এবং জনসেবায় তাঁর প্রবেশ প্রথম প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে জয়লাভের পথে তাকে নিয়ে গেছে অলৌকিকভাবে।
হোয়ারটন স্কুল অব ফিন্যান্সে গ্র্যাজুয়েট করার পর ট্রাম্প আবাসন ব্যবসায় তার পিতার পদাঙ্ক অনুসরণ করেন এবং নিউ ইয়র্কে তিনি আবাসন শিল্পের জগতে প্রবেশ করেন। ট্রাম্প ভবন ম্যানহাটনের এবং সেই সূত্রে সারা বিশ্বের সবচেয়ে সম্মানজনক ঠিকানায় পরিণত হয়। একজন সফল লেখক হিসেবে ১৪টির বেশি বেস্টসেলার বই লিখেছেন। তাঁর প্রথম বই “দ্য আর্ট অব দ্য ডিল”ওই বছরের এক নম্বর বই হওয়ার পাশাপাশি বাণিজ্য বিষয়ক একটি ধ্রুপদী গ্রন্থ হিসেবে বিবেচিত হয়।
১৭ জন রিপাবলিকান প্রতিদ্বন্দ্বী তাঁদের প্রচারনা স্থগিত করার পর ১৬ জুন ২০১৫ সালে ট্রাম্প তাঁর প্রার্থিতা ঘোষণা করেন। ২০১৫ সালের জুলাই মাসে তিনি যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট পদে রিপাকলিকান দলের প্রার্থিতা গ্রহণ করেন। ট্রাম্প ২৮ বছরে রিপাবলিকান দলের সর্ববৃহৎ ইলেকটোরাল কলেজ ভোট জয়ে ২০১৬ সালের ৮ নভেম্বর নির্বাচনে জয়লাভ করেন। তিনি সারা দেশে ২,৬০০ এর বেশি কাউন্টিতে জয়লাভ করেন, যা ১৯৮৪ সালে প্রেসিডেন্ট রিগানের পর সবচেয়ে বেশি। এছাড়া তিনি জনপ্রিয় ভোটে ৬২ মিলিয়নের বেশি ভোট পান, কোনো রিপাবলিকান প্রার্থীর জন্যে যা সর্বকালের সবচেয়ে বেশি। তিনি ৩০৬টি ইলেকটোরাল ভোট পান, ১৯৮৮ সালে জর্জ এইচ ডাবলু বুশের পর যা সবচেয়ে বেশি। দেশ পুনর্গঠন এবং স্থিতাবস্থা ভেঙ্গে ফেলা সংক্রান্ত তার বার্তাকে লাখ লাখ আমেরিকান সমর্থন দিয়েছে – এটি ছিল সত্যিকার অর্থে একটি জাতীয় বিজয় এবং এক ঐতিহাসিক আন্দোলন।
ডোনাল্ড জে ট্রাম্প সেইসব জায়গায় নির্বাচনী প্রচারনা চালিয়েছেন, যেগুলোয় রিপাবলিকানদের জয়লাভ কঠিন বলে তিনি জানতেন – ফ্লিন্ট, মিশিগান, ক্লিভল্যান্ডের স্বল্প-আয়ের অধিবাসীদের চার্টার স্কুল এলাকা এবং ফ্লোরিডার হিস্পানি চার্চ এলাকা- কারণ তিনি তাঁর অর্থনৈতিক ক্ষমতায়নের বার্তা সকল আমেরিকানের কাছে পৌঁছে দিতে চেয়েছেন। উৎকৃষ্ট বাণিজ্য চুক্তির মাধ্যমে সমৃদ্ধি আনার ব্যাপারে তাঁর বার্তার কারণে লাখ লাখ নতুন রিপাবলিকান সমর্থক তাদের ভোট দিয়ে ট্রাম্পের প্রতি আস্থা পোষণ করেছেন। এর ফলে রিপাবলিকান সমর্থন বলয়ে প্রবেশ করা নতুন নতুন এলাকায় ভালো ব্যবধানে জিতেছেন তিনি। এটা পরিস্কার যে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের জয় সব ধরনের আমেরিকানকে ঐক্যবদ্ধ করেছে এবং মেয়াদের প্রথম দিন থেকে এবং প্রতিটি দিনই তিনি দেশের জন্যে সুফল বয়ে আনতে প্রস্তুত ।
প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প ১২ বছর ধরে স্ত্রী মেলানিয়ার সঙ্গে সংসার করছেন এবং ব্যারন নামে একটি পুত্রসন্তানের তারা মা-বাবা। এছাড়াও ডন জুনিয়র, ইভানকা, এরিক এবং টিফানি নামে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের চারটি প্রাপ্তবয়স্ক সন্তান এবং আট নাতি-নাতনি আছে।
জীবনী উৎস: whitehouse.gov